মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১st ফেব্রুয়ারি ২০১৮

অপসংস্কৃতি রোধে ইসলামি সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতাগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে- বলেছেন ইসলামি সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তারা


প্রকাশন তারিখ : 2018-02-01

ঢাকা, ৩১ জানুয়ারি ২০১৮, বুধবার 
           অপসংস্কৃতি রোধে ইসলামি সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতাগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। শিশু কিশোরদের মাঝে ইসলামের চেতনা ছড়িয়ে দিতে হবে। আর তাই আরো বেশি করে এ ধরণের সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা প্রয়োজন। আজ (৩১ জানুয়ারি, বুধবার) বিকাল ৩.০০ টায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মুকাররমস্থ মিলনায়তনে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) ১৪৩৯ হিজরী উদযাপন উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডশন আয়োজিত ইসলামী সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার ও সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। 

           ইসলামি মূল্যবোধের বিকাশে এবং ইসলামি সংস্কৃতিকে এগিয়ে নিতে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বক্তারা বলেন, এই ধরণের প্রতিযোগিতার আয়োজনের মাধ্যমে শিশু-কিশোরদের  প্রতিভার বিকাশ ঘটছে। মহানবী (সা.) পৃথিবীতে এসেছিলেন শান্তির বার্তা নিয়ে। আগামী প্রজন্ম মহানবীর জীবনাদর্শকে সঠিকভাবে অনুসরণ করতে পারলে একটি শান্তিময় বিশ্ব প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হবে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আইন উপদেষ্টা ও সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ (অব.) এ আর মাছউদ, সুইড বাংলাদেশের পরিচালক মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের দ্বীনী দাওয়াত ও সংস্কৃতি বিভাগের পরিচালক মোঃ মোজাহারুল মান্নান। 

           এছাড়া অনুষ্ঠানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পরিচালক মুহাম্মদ মহিউদ্দিন মজুমদার, মহিলা শাখার কো-অর্ডিনেটর কামরুন্নেছা মান্নান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।  ইসলামিক ফাউন্ডেশন আয়োজিত এসব প্রতিযোগিতায় স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, মাদ্রাসার ও অটিস্টিক শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে। প্রায় ৮৭ জন শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন শাখায় পুরস্কার প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথিবৃন্দ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। 


Share with :
Facebook Facebook